আমাদের দেশদেশধর্ম ও দর্শন

অযুর সুন্নাতসমুহ

40views

অযুতে কিছু সুন্নত রয়েছে যা পালন করলে অনেক সোয়াব পাওয়া যায়। এবং সুন্দর করে অযু করার বেপারে অনেক হাদিস রয়েছে, যেমন: হজরত আমর ইবনে আবাসা রা: থেকে বর্ণিত হয়েছে, তিনি বলেন, ” আমি একদিন প্রশ্ন করলাম, ইয়া রাসূলুল্লাহ! অজুর ফায়দা কী? তিনি বলেন, যখন তুমি অজু করবে ও দুই হাতের কবজি পরিষ্কার করে ধৌত করবে, তখন গোনাহসমূহ আঙুলের অগ্রভাগ ও নখ দিয়ে বের হয়ে যাবে, নাকের ছিদ্র পরিষ্কার করবে, মুখ ও হস্তদ্বয় কনুই পর্যন্ত ধৌত করবে, মাথা মাসেহ করবে ও উভয় পা টাখনু পর্যন্ত ধৌত করবে, তখন তুমি যেন তোমার গোনাহগুলোকে ধুয়ে পরিষ্কার করে দিলে। এরপর যখন তুমি তোমার চেহারা আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য জমিনে রাখবে, তখন তুমি এমনভাবে গোনাহ থেকে নিষ্পাপ হয়ে যাবে, যেদিন তোমার মা তোমাকে জন্ম দিয়েছিল।”

তাই আমাদের অযু করার সময় খেয়াল রাখা খুবি দরকারি যেন অজু সন্দর হয়, এবং তার সুন্নতগুলো যথাযত পালন হয়। নিম্নে অযুর সুন্নতগুলো আপনাদের সুবিধার্তে উল্লেখ করা হলো

অযুর সুন্নতগুলো হলো:-

১.  অযুতে নিয়্যত করা সুন্নত।

২. বিসমিল্লাহ   পড়া সুন্নত । অযুর পূর্বে কেউ বিসমিল্লাহ পড়লে,    যতক্ষণ   অযু    অবস্থায়   থাকবে ততক্ষণ    পর্যন্ত    ফেরেস্তাগণ    তাঁর   আমলনামায়    নেকী  লিখতে    থাকবে।

৩. দুই   হাতই   কব্জি   পর্যন্ত তিনবার ধোয়া  সুন্নত ।

৪.  তিনবার মিসওয়াক করা সুন্নত।

৫.  তিনবার    কুলি  করা সুন্নত ।

৬. রোযাদার   না হলে গড়-গড়া করা  সুন্নত ।

৭.  তিনবার   নাকে পানি দিয়ে নাক পরিষ্কার করা সুন্নত।

 ৮. দাঁড়ি   থাকলে   (ইহরাম অবস্থায়   না থাকলে )  দাঁড়ি খিলাল করা। অথ্যাৎ দাড়ি ঘন থাকলে       দাড়ির মাঝখানে কয়েকবার হাত দিয়ে মসাহ করা সুন্নত।    

৯.  হাত ও পায়ের আঙ্গুল     সমূহ   খিলাল      করা সুন্নত। (এক  আঙ্গুল  অন্য আঙ্গুলের মাঝে ঢুকিয়ে ঘশা দেয়া।)

১০.    সম্পূর্ণ   মাথা একবার  মাসেহ করা।  এখানে কান, ঘার, সহ করতে হবে।

১১. উভয় কান মাসেহ্ করা সুন্নত।

১২. অযুর  ফরযগুলোতে  ধারাবাহিকতা  রক্ষা  করা।  (অর্থাৎ   প্রথমে     মুখ   তারপর      কনুই   সহ   হাত ধোয়া,  তারপর  মাথা  মাসেহ্  করা  তারপর  পা  ধোয়া) ইত্যাদি।  

  ১৩. এক  অঙ্গ   শুকানোর  আগে অন্য  অঙ্গ  ধৌত   করা।

Source :