[fusion_builder_container hundred_percent=”no” hundred_percent_height=”no” hundred_percent_height_scroll=”no” hundred_percent_height_center_content=”yes” equal_height_columns=”no” menu_anchor=”” hide_on_mobile=”small-visibility,medium-visibility,large-visibility” status=”published” publish_date=”” class=”” id=”” link_color=”” link_hover_color=”” border_size=”” border_color=”” border_style=”solid” margin_top=”” margin_bottom=”” padding_top=”” padding_right=”” padding_bottom=”” padding_left=”” gradient_start_color=”” gradient_end_color=”” gradient_start_position=”0″ gradient_end_position=”100″ gradient_type=”linear” radial_direction=”center center” linear_angle=”180″ background_color=”” background_image=”” background_position=”center center” background_repeat=”no-repeat” fade=”no” background_parallax=”none” enable_mobile=”no” parallax_speed=”0.3″ background_blend_mode=”none” video_mp4=”” video_webm=”” video_ogv=”” video_url=”” video_aspect_ratio=”16:9″ video_loop=”yes” video_mute=”yes” video_preview_image=”” filter_hue=”0″ filter_saturation=”100″ filter_brightness=”100″ filter_contrast=”100″ filter_invert=”0″ filter_sepia=”0″ filter_opacity=”100″ filter_blur=”0″ filter_hue_hover=”0″ filter_saturation_hover=”100″ filter_brightness_hover=”100″ filter_contrast_hover=”100″ filter_invert_hover=”0″ filter_sepia_hover=”0″ filter_opacity_hover=”100″ filter_blur_hover=”0″][fusion_builder_row][fusion_builder_column type=”1_1″ layout=”1_1″ spacing=”” center_content=”no” link=”” target=”_self” min_height=”” hide_on_mobile=”small-visibility,medium-visibility,large-visibility” class=”” id=”” background_image_id=”” hover_type=”none” border_size=”0″ border_color=”” border_style=”solid” border_position=”all” border_radius_top_left=”” border_radius_top_right=”” border_radius_bottom_right=”” border_radius_bottom_left=”” box_shadow=”no” box_shadow_vertical=”” box_shadow_horizontal=”” box_shadow_blur=”0″ box_shadow_spread=”0″ box_shadow_color=”” box_shadow_style=”” padding_top=”20px” padding_right=”20px” padding_bottom=”20px” padding_left=”20px” margin_top=”” margin_bottom=”” background_type=”single” gradient_start_color=”” gradient_end_color=”” gradient_start_position=”0″ gradient_end_position=”100″ gradient_type=”linear” radial_direction=”center center” linear_angle=”180″ background_color=”#ffffff” background_image=”” background_position=”left top” background_repeat=”no-repeat” background_blend_mode=”none” animation_type=”” animation_direction=”left” animation_speed=”0.3″ animation_offset=”” filter_type=”regular” filter_hue=”0″ filter_saturation=”100″ filter_brightness=”100″ filter_contrast=”100″ filter_invert=”0″ filter_sepia=”0″ filter_opacity=”100″ filter_blur=”0″ filter_hue_hover=”0″ filter_saturation_hover=”100″ filter_brightness_hover=”100″ filter_contrast_hover=”100″ filter_invert_hover=”0″ filter_sepia_hover=”0″ filter_opacity_hover=”100″ filter_blur_hover=”0″ last=”no”][fusion_text columns=”” column_min_width=”” column_spacing=”” rule_style=”default” rule_size=”” rule_color=”” hide_on_mobile=”small-visibility,medium-visibility,large-visibility” class=”” id=”” animation_type=”” animation_direction=”left” animation_speed=”0.3″ animation_offset=””]

দেশে বিদ্যুৎ উৎপাদন , সঞ্চালন ও বিতরণের দায়দায়িত্ব বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড (পিডিবি), পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড (আরইবি) এবং বৈদ্যুতিক সরবরাহ কর্তৃপক্ষের (ডিএসএ) ১৯৯৭-৯৮ চলাকালীন দেশে বিদ্যুতের ইনস্টলড জেনারেশন ক্ষমতা ছিল ৩০৯১ মেগাওয়াট। কিন্তু অনেক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের বৃদ্ধির কারণে কিছু কিছু অপ্রচল হয়ে পড়ে এবং গ্যাস সরবরাহে ঘাটতি দেখা দেয়, আসল বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্ষমতা কমে ২৩৫০-২৪০০ মেগাওয়াটে নেমে আসে। কিছু বিদ্যুৎকেন্দ্র বিএমআরই-এর অধীনে থাকায়, বর্তমানে বিদ্যুতের গড় উত্পাদন প্রায় ১৯00 মেগাওয়াট। বিদ্যুৎ উৎপাদনের জন্য গ্যাস হাইড্রো এবং তরল ভিত্তিক জ্বালানির ভাগ যথাক্রমে ৮৪.৫%, ৬.১% এবং ৯.৪%। সর্বোচ্চ চাহিদা প্রায় ২৩০০ মেগাওয়াট যা ২০০০ এডি অবধি প্রায় ৩১৫০ মেগাওয়াট পৌঁছে যাবে। বিদ্যুৎ খাতকে বেসরকারী বিনিয়োগে উন্মুক্ত করার জন্য সরকার শিল্প নীতি সংশোধন করেছে এবং বেসরকারী খাত বিদ্যুৎ উৎপাদনের  নীতি গ্রহণ করেছে।

প্রাকৃতিক গ্যাস বাংলাদেশের বাণিজ্যিক শক্তির সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ উৎস এটি দেশের বাণিজ্যিক জ্বালানির ৭0% চাহিদা পূরণ করে। প্রাথমিক শক্তির অন্যান্য উৎসগুলি আমদানি করা পেট্রোলিয়াম পণ্য এবং কয়লা।

[/fusion_text][fusion_separator style_type=”none” hide_on_mobile=”small-visibility,medium-visibility,large-visibility” class=”” id=”” sep_color=”” top_margin=”10px” bottom_margin=”10px” border_size=”” icon=”” icon_size=”” icon_circle=”” icon_circle_color=”” width=”” alignment=”center” /][fusion_imageframe image_id=”287|full” max_width=”” style_type=”” blur=”” stylecolor=”” hover_type=”none” bordersize=”” bordercolor=”” borderradius=”” align=”center” lightbox=”no” gallery_id=”” lightbox_image=”” lightbox_image_id=”” alt=”” link=”” linktarget=”_self” hide_on_mobile=”small-visibility,medium-visibility,large-visibility” class=”” id=”” animation_type=”” animation_direction=”left” animation_speed=”0.3″ animation_offset=”” filter_hue=”0″ filter_saturation=”100″ filter_brightness=”100″ filter_contrast=”100″ filter_invert=”0″ filter_sepia=”0″ filter_opacity=”100″ filter_blur=”0″ filter_hue_hover=”0″ filter_saturation_hover=”100″ filter_brightness_hover=”100″ filter_contrast_hover=”100″ filter_invert_hover=”0″ filter_sepia_hover=”0″ filter_opacity_hover=”100″ filter_blur_hover=”0″]https://amaderdesh.com/wp-content/uploads/2020/04/titas_0.jpg[/fusion_imageframe][fusion_separator style_type=”none” hide_on_mobile=”small-visibility,medium-visibility,large-visibility” class=”” id=”” sep_color=”” top_margin=”10px” bottom_margin=”10px” border_size=”” icon=”” icon_size=”” icon_circle=”” icon_circle_color=”” width=”” alignment=”center” /][fusion_text columns=”” column_min_width=”” column_spacing=”” rule_style=”default” rule_size=”” rule_color=”” hide_on_mobile=”small-visibility,medium-visibility,large-visibility” class=”” id=”” animation_type=”” animation_direction=”left” animation_speed=”0.3″ animation_offset=””]বড়পুকুরিয়া কয়লা খন প্রকল্পের নির্মাণ কাজ ১৯৯৪ সালে শুরু হয়েছিল। এটির একটি প্রমাণিত মজুদ রয়েছে ৩৩৩ মিলিয়ন মেট্রিক টন এবং এটি ২০০০-২০০১ সালে চালু হবে বলে আশা করা হচ্ছে। মধ্যপাড়া হার্ড রক প্রকল্পটি ২০০০ সালে চালু হওয়ার পরে বছরে ১.৬৫৬৫ মিলিয়ন টন হার্ড রক উৎপাদন করবে বলে আশা করা হচ্ছে।

প্রাকৃতিক গ্যাস ও পেট্রোলিয়াম অনুসন্ধান, উৎপাদন ও বিকাশ ত্বরান্বিত করতে সরকার বৈদেশিক বিনিয়োগের আমন্ত্রণ জানিয়েছে। সম্প্রতি গৃহীত জাতীয় পেট্রোলিয়াম নীতিতে বিদেশী বিনিয়োগকারীদের জন্য উৎসাহ দেওয়া হয়েছে। কয়েকটি মাল্টিন্যাশনাল সংস্থা সরকারের সাথে প্রোডাকশন শেয়ারিং চুক্তি স্বাক্ষরের পরে ইতোমধ্যে দেশের বিভিন্ন অনুসন্ধান ব্লকগুলিতে কাজ শুরু করেছে।[/fusion_text][/fusion_builder_column][/fusion_builder_row][/fusion_builder_container]