আমাদের দেশদেশধর্ম ও দর্শন

নামাজ ভঙ্গের কারণ ১৯ টি

35views

নামাজ সঠিক হওয়ার জন্য যেমন, কিছু নিয়ম আছে, ঠিক তেমনি এমন কিছু বিষয় আছে যা করলে নামাজ ভেঙ্গে যায় ।আজকে আমরা নামাজ ভাঙ্গার কারন নিয়ে আলোচনা করবো।

১)  নামাজে অশুদ্ব পড়া। নামাজে কুরআন তেলাওয়াতে যদি এমন কিছু ভুল হয় যার কারনে কুরআনে অর্থ পরিবর্তন হয়ে যায় । তাহলে নামাজ হবে না।

২)  নামাজের ভিতর কথা বলা। নামাজের ভিতর কারো সাথে কথা বল্লে নামাজ ভেঙ্গে যাবে।

৩)  কোনো লোককে সালাম দেওয়া। নামাজে থাকা অবস্থায় কাউকে সালাম দিলে নামাজ ভেঙ্গে যাবে।

৪)  সালামের উত্তর দেওয়া। নামাজে থাকা অবস্থায় কারো  সালামের উত্তর  দিলে নামাজ ভেঙ্গে যাবে।

৫)  উঃ – আহ শব্দ করা। বেথা-কষ্ট পেয়ে বা অন্য কোন কারনে উঃ – আহ অথবা এ ধরনের  কোন শব্দ করলে নামাজ ভেঙ্গে যাবে।

৬)  বিনা কারণে কাশিঁ দেওয়া।  কারন ছাড়া কাশি দিলে নামাজ ভেঙ্গে যাবে।

৭)  আমলে কাছির করা। ( নামাজ বিষয়ের কাজ ছাড়া অন্য কাজ কার ) আমলে কাছির নিয়ে বিভিন্ন মতবেদ আছে। তবে নির্ভরযোগ্য মত হল দুর থেকে কেউ দেখে যদি ভাবে আপনি নামাজ পড়ছেন না তাহলে নামাজ ভেঙ্গে যাবে।

৮)  বিপদে বা বেথায় শব্দ করে কাদাঁ। দুনিয়বি কোন বিষয়ের জন্য নামাজে যদি শব্দ করে কাদেন তাহলে নামাজ ভেঙ্গে যাবে। যেমন, অসুস্থ হওয়া, কারো মৃত্যুর সংবাদে, বা কোন খারাপ সংবাদের কারনে কাদা।

৯)  তিন তাছবিহ পরিমাণ সময় ছতর খুলে থাকা। পুরুশ বা মহিলারে প্রত্তেকের নিদ্দিষ্ট পরিমান সতরের কোন অংশ তিন তাছবি পরিমান সময় ছতর খোলা থাকলে নামাজ ভেঙ্গে যাবে। ( তাসবিহ বলতে এখানে নামাজে আমরা ছোট যে দোয়া পড়ে থাকি সেগুলোকে বুঝানো হয়েছে। যেমন, সুবহানা রাব্বিয়াল আযিম / সুবহানা রাব্বিয়াল আ‘লা ইত্যাদি। )

১০)  মুকতাদি ছাড়া অন্য কোন লোক লোকমা ( ভুল ধারা )  দেয়া। (  জামাতের নামাজে  ইমামের পেছনে যারা  নামায পড়েন তাদের মুকতাদি বলে ) নামাজে ইমাম সহেব যখন ভুল করেন তখন মুকতাদি ছাড়া অন্য কেউ ভুল ধরা।

১১) সুসংবাদ ও দুঃখ সংবাদের উত্তর দেওয়া।

১২) নাপাক জায়গায় সিজদা দেওয়া। যেখোনে সিজদা করা হয় ঐ জায়গা পাক হতে হবে । নাপাক হলে নামাজ হবে না।

১৩) কিবলার দিক হইতে ছিনা ( বুক )  ফিরিয়ে নেওয়া।  তবে যানবাহনে নামাজের ক্ষেত্রে মাসআলা ভিন্ন।

১৪)  নামাজে কোরআন দেখিয়া পড়া। হানাফি মাজহাবে কুরআন দেখে পড়লে নামাজ ভেঙ্গে যাবে।

১৫) নামাজে কোনো কিছু  খাওয়া ও পান করা। নামাজ পড়া অবস্থা যদি কেউ খাবার খায় বা পান করে তাহলে নামাজ ভেঙ্গে যাবে।

১৬) নামাজে শব্দ করে হাসা। নামাজে শব্দ করে হাসলে অজুও ভেঙ্গে যাবে।

১৭) নামাজে হাচির উত্তর দওয়া।

১৮) নামাজে দুনিয়াবি কোনো কিছু প্রার্থনা করা। নামাজে এমন কিছু প্রর্থনা করা যেটা দুনিয়বি, যেমন, হে আল্লাহ আমাতে বাড়ি, গাড়ি দাউ ,সম্পদ ইত্যাদি প্রার্থনা করলেনামাজ ভেঙ্গে যাবে।

১৯) ইমামের আগে মুকতাদি দাড়ানো। ইমাম সাহেবের আগে মুক্তাদি নামাজে দাড়ানো।

এই ১৯টি বিষয় ছাড়াও নামাজ ভঙ্গার আরো কারণ আছে। যেমন—ইমামের আগে কোনো রোকন আদায় করে ফেলা, পাগল, মাতাল কিংবা অচেতন হয়ে যাওয়া। কোনো প্রাপ্তবয়স্ক গয়রে মাহরাম নারী পাশে এসে নামাজে দাঁড়িয়ে যাওয়া,  ইত্যাদি নামাজ ভঙ্গের কারণ। আমরা নামাজ পড়ার সময় এই সকল বিষয়ের প্রতি অবশ্যই খেয়াল রাখবো।

Source :