শুষ্ক মৌসুমে পানির ঘাটতির দ্বৈত সমস্যা এবং বর্ষাকালে এর প্রাচুর্য বাংলাদেশের জলের সংস্থানসমূহের বিকাশ ও পরিচালনায় গুরুত্বপূর্ণ। জনগণের সুবিধার্থে তাদের প্রবাহকে যথাযথভাবে জোরদার করার জন্য বিশ্ব-গঙ্গার তিনটি প্রধান নদ-নদীর নিম্নতর সমুদ্র, ব্রহ্মপুত্র এবং মেঘনা-বাংলাদেশ অতীতে অর্থবহ জলের বিকাশ করতে পারেনি।

১৯৬ সালের ১২ ই ডিসেম্বর ভারতের সাথে স্বাক্ষরিত ঐতিহাসিক গঙ্গা পানি বণ্টন চুক্তি ফারাক্কা ব্যারেজের নেতিবাচক প্রভাব কাটিয়ে উঠতে এবং দেশের জলের সম্পদের সম্ভাবনাকে ট্যাপ করার জন্য নতুন পথ উন্মুক্ত করেছে। আঞ্চলিকদের জন্যও সুযোগ উন্মুক্ত হয়েছে। পারস্পরিক সুবিধার জন্য উপ আঞ্চলিক এবং অববাহিকা প্রশস্ত উন্নয়ন এবং জলের ব্যবস্থাপনা এই পটভূমিতে বর্তমান সরকার গঙ্গা ব্যারেজ বাস্তবায়নের জন্য গ্রহণ করেছে।