আমাদের দেশলাইফস্টাইল

মোবাইল ফোন ট্রাকিং বা হ্যাক হয়েছে কিনা কীভাবে বুঝবেন?

মোবাইল ফোন ট্রাকিং বা হ্যাক
22views

বর্তমানে মোবাইল ফোন ট্রাকিং বা গুপ্তচরবৃত্তি  অনেকটাই কমন হয়ে গেছে। এটি সাধারণ মানুষের অজান্তেই হয়ে থাকে। যার মাধ্যমে মোবাইল ফোন ব্যবহারকারী অনেক তথ্যই চুরি করা হয়। প্রযুক্তির এই অপব্যবহার থেকে বাচঁতে জেনে নিন কীভাবে আপনার মোবাইল ফোনটি হ্যাক কিংবা ট্রাকিং করা হয়।

মোবাইল ফোন হ্যাক কিংবা ট্রাকিংয়ের  ১০ টি উপায় সম্পর্কে আলোচনা করা হল।

১)  অস্বাভাবিকভাবে  ডাটার ব্যবহার।

আপনার ফোনের মাসিক ডাটা ব্যবহারটি কি সম্প্রতি বেড়েছে?

আপনার ডিভাইসে যদি স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি ডাটা ব্যবহৃত হয়। তাহলে এটি  ইঙ্গিত করে যে  আপনার ডিভাইসে কেউ স্পাইওয়্যার ইনস্টল করেছে যার মাধ্যমে আপনার ফোনের ডাটা অন্য কারো কারো কাছে চলে যাচ্ছে।

আপনার মাসিক ডাটার ব্যবহার সম্পর্কে আপনি সচেতন হোন এবং ব্যবহারের  প্রতি আপনি বিষেশভাবে নজর রাখবেন।আপনি কতটা ডাটা ব্যবহার করেছেন তা যাচাই করা জন্য আপনার ওয়্যারলেস অপারেটরের সাথে যোগাযোগ করতে পারেন এবং  নিজের ডিভাইসটিও পরীক্ষা করতে পারেন।

২)  ফোনের স্ট্যান্ডবাই মোডের কার্যকলাপ নিরীক্ষণ।

আপনার ফোনের নোটিফিকেশন গুলো লক্ষ্য করুন।যখন ফোনে কোন ইনকামিং কল, বার্তা বিজ্ঞপ্তিগুলি  আসে তখন অবশ্যই আলোকিত হওয়া  উচিত, কিন্তু যদি আপনার ফোনের স্ক্রিনটি অকারণে আলোকিত হয় তাহলে  ধরা যায় আপনার ফোনের ডাটা হয়ত অন্য কোথাও স্থানান্তরিত হচ্ছে যার কারণে নোটিফিকেশন আসছে কিন্তু থার্ড পার্টি সফটওয়্যার ইনস্টল থাকার কারণে তা দৃশ্যায়মান হচ্ছে না।

৩)  অপ্রত্যাশিত রিবুট।

আপনার স্মার্টফোনটি  যদি নির্দিষ্ট কোন কারণ ছাড়া অটোমেটিক অন অফ হয় যা আপনি নিয়ন্ত্রণ করছেন না।আপনার ফোনের অপ্রত্যাশিত রিবুট হওয়ার পেছনে অন্য কারও অ্যাক্সেস থাকতে পারে এবং সে ইচ্ছেমতো আপনার ডিভাইসটি রিবুট করতে পারে।

এটি হতে পারে যে আপনি সম্প্রতি ডাউনলোড হওয়া সর্বশেষ  অ্যাপ্লিকেশন বা অপারেটিং সিস্টেমটিতে একটি বাগ রয়েছে। যার কারণে অ্যাপটি ব্যবহার করে আপনার ডিভাইসটিকে নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হচ্ছে।

৪)  কল চলাকালীন  শব্দ।

অ্যানালগ সেল ফোন নেটওয়ার্কগুলির দিনগুলিতে অদ্ভুত ধরণের নানা শব্দ শোনা যেত। তবে, বর্তমানে সমস্ত-ডিজিটাল মোবাইল ফোন নেটওয়ার্কগুলি বেশিরভাগ শব্দ-মুক্ত যা আগে শোনা যেত।

সুতরাং, আপনি যদি  মোবাইল ফোনে কথা বলার সময় পটভূমিতে অদ্ভুত কোন শব্দ শুনতে পান, যা আপনি যার সঙ্গে কথা বলছেন তা সেখান থেকে শোনার কথা নয়।তাহলে আপনি ধরে নিতে পারেন যে কেউ আপনার ফোনে স্পাইওয়্যার ব্যবহার করে আপনার ফোনের তথ্য গুলো সংরক্ষণ করে নিচ্ছে।

৫)  অপ্রত্যাশিত পাঠ্য বার্তা

আপনি কি আপনার ফোনে অপ্রত্যাশিত বার্তা পাচ্ছেন বা আপনার বন্ধুরা  আপনার ফোন থেকে অদ্ভুত বা আপত্তিকর বার্তা পাচ্ছে?

যদি এরকম কিছু আপনার সাথে হয়ে থাকে তাহলে ধরে নিতে পারেন আপনার স্মার্টফোনে স্পাইওয়্যার বা ম্যালওয়্যার ইনস্টল রয়েছে। যা আপনার ফোনের সাথে সংযোগ থাকা বন্ধুদের কাছে  টেক্সট বার্তা প্রেরণ করে তা ছড়িয়ে দিচ্ছে।

৬)  ব্যাটারি লাইফ।

আপনি যদি দেখেন যে আপনার ডিভাইসের ব্যাটারির জীবন দ্রুত এবং অপ্রত্যাশিতভাবে অবনতি হতে শুরু হয়েছে যার অর্থ আপনার ব্যাটারি পুরানো এবং প্রতিস্থাপনের প্রয়োজন। বা এর অর্থ এই হতে পারে যে আপনার ডিভাইস স্পাইওয়্যার দ্বারা সংক্রামিত হয়েছে এবং এটি আপনার স্মার্টফোনে অতিরিক্ত চাপের ফলে ব্যাটারিটি স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি ব্যবহৃত হচ্ছে।

স্পাইওয়্যার আপনার সমস্ত অন-ডিভাইস ক্রিয়াকলাপ পর্যবেক্ষণ করে এবং আপনার ক্রিয়াকলাপ সম্পর্কে  তথ্য প্রেরণ করে । সংক্ষিপ্ত ব্যাটারি লাইফ স্পাইওয়্যারগুলির ক্রিয়াকলাপগুলির কারণে প্রায়শই দুর্বল হয়ে যায়।

৭)  ব্যাটারি তাপমাত্রা বাড়ানো।

ব্যাটারির তাপমাত্রা বৃদ্ধি  একটি একাধিক প্রযুক্তিগত সমস্যার কারণ হতে পারে, তবে এটি স্পষ্ট ম্যাওয়্যারের  ক্রিয়াকলাপের মতো তা হতে পারে।

আপনার স্মার্টফোনটি  যদি ব্যবহার না করেন এবং এটি কেবল আপনার ডেস্কে থাকে তবে এটি গরম  হওয়া স্বাভাবিক নয়। যদি এটি অতিরিক্ত গরম হয় তবে ম্যালওয়্যার পর্দার আড়ালে কাজ করে। এটি আপনার ফোনের সকল সিস্টেমে সবর্দা নজরদারি রাখে যার ফলে ফোনটি গরম হচ্ছে।

৮)  ডিভাইসের অন-অফ টাইম।

আপনার স্মার্টফোনটির অন-অফ সময়ের প্রতি লক্ষ্য করুন। যদি স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি সময় নিয়ে থাকে তাহলে এটি হতে পারে যে আপনার ফোনটি ম্যালওয়্যার দ্বারা আক্রান্ত। যার ফলে সিস্টেমটি চালু এবং অফ হতে অনেক সময় নিয়ে থাকে। এটির কারণ হচ্ছে আপনার ফোনে অনেক ম্যালওয়্যার রয়েছে যা সক্রিয় এবং অফ হতে অনেক টাইম নিয়ে থাকে।

৯)  ডিভাইসটি অন-অফ অসুবিধা।

ম্যালওয়্যারের আক্রমনের ফলে অনেক সময় এমনও হতে পারে আপনার ফোনটি অন-অফ করতে গেলে তা করা সম্ভব হয়ে ওঠে না।এটি তখনি হয় যখন আপনার ফোনটি ম্যালওয়্যার দ্বারা পুরোপুরি আক্রান্ত হয়ে যায়।

১০)  ধীর গতি।

আপনার ফোনটি যদি ম্যালওয়্যার বা স্পাইওয়্যার দ্বারা আক্রান্ত হয়ে থাকে আপনি লক্ষ্য করতে পারবেন। কারণ এটি আপনার ফোনের গতি কমিয়ে দিবে। মোবাইলের এ্যাপ্লিকেশন গুলি অনেক ধীর গতিতে কাজ করবে এবং সঠিকভাবে প্যারফরমেন্স করবে না। এটি আপনার ফোনের সিস্টেমগুলিকে সর্বক্ষণ ব্যাস্ত রাখে এর ফলে আপনার ফোনের গতি কমে যাবে।

আরও পড়ুনঃ- নতুন সম্পর্কের শুরুতে যে কাজ গুলো করা থেকে বিরত থাকবেন।

Source :